• শিরোনাম

    শীতকালে ওজন কমাবে আপেল চা

    মানচিত্র ডেস্ক | ০৪ ডিসেম্বর ২০২০ | ১২:০৫ পূর্বাহ্ণ

    শীতকালে ওজন কমাবে আপেল চা

    প্রতীকি ছবি

    ডায়েটে প্রতিদিন একটা আপেল মানেই ডাক্তার থেকে দূরে থাকা। আপেলের গুণ নিয়ে কথা বলতে গেলে শেষ করা যাবে না। কাঁচা হোক বা সামান্য আগুনে টস করে স্যালাডে, কাস্টার্ডে হোক বা পুডিঙয়ের মধ্যে আপেলের স্বাদ কখনই নিরাশ করে না। শুধু স্বাদের দিকেই না পুষ্টিগুণেও আপেলের ধারে কাছে নেই কিছুই।

    তবে অনেকেই আমরা জানি না আপেল চায়ের উপকারিতা। ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ করা হোক বা রক্তে কোলেস্টোরেলের মাত্রা ঠিক রাখা সবকিছুতেই আপেলের চায়ের ভূমিকা সক্রিয়। এমনকী ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতেও আপেলের চা জুড়ি মেলা ভার।

    আপেল চা রক্তের চিনির এবং কোলেস্টেরলকে হ্রাস করে। ভিটামিন ই এবং সি, পেকটিন, ফলিক অ্যাসিড, ফ্লাভোনয়েড উপাদানযুক্ত আপেল চা পান করা ব্যক্তিটিকে রোগ থেকে রক্ষা করে। আপেল চা ভিটামিন সি সমৃদ্ধ। অতএব, এটি শীতকালীন সময়ে সর্দি, ফ্লু এবং সর্দি জাতীয় অনেক রোগের বিরুদ্ধে সুরক্ষা দেয়। কাশির মতো রোগগুলোও নির্মূল করতে সহায়তা করে।

    আপেল চা এর যেহেতু এটিতে সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ বেনিফিটগুলির মধ্যে উচ্চ ফাইবার রয়েছে, তাই ওজন হ্রাস করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এমন লোকদের ডায়েটের সময় এটি অন্যতম সহায়ক চা।

    আপেল চায়ে ক্যাটিচিন এবং কোরেসেটিনের মতো বেশ কয়েকটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। এছাড়াও, এতে ম্যাগনেসিয়াম, সোডিয়াম এবং পটাসিয়াম জাতীয় খনিজ রয়েছে। এটিতে যখন আপেল চা থাকে তখন এটিতে প্রয়োজনীয় ভিটামিন থাকে যেমন এ, বি, ই, সি, পি, পিপি। মানব দেহকে আয়রন, অ্যামিনো অ্যাসিড, ফ্রুক্টোজ, ক্যালসিয়াম এবং অনেকগুলি ট্রেস উপাদান সরবরাহ করে, পানীয়টি স্বাস্থ্য এবং প্রাণশক্তি দেয়।

    আপেল চা পেশী এবং জয়েন্টের ব্যথার জন্য ভাল। এটি বাতের উপকার করে। এতে থাকা ভিটামিন এবং খনিজগুলো পেশীগুলোর মধ্যে টান হ্রাস করে। এতে মাথা ব্যথার উপকার হয়। টাইপ ২ ডায়াবেটিসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করতে পারে আপেল চা। আপেল চায়ে পাওয়া পলিফেনলগুলো রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে।

    দীর্ঘায়িত হলে কাশি বিরক্তিকর হয়ে উঠতে পারে। অ্যাপল চা গলা ব্যথার জন্য বিশেষত ভাল এবং গলা নরম করে তোলে। নিয়মিত আপেল চা কাশি কমাতে সহায়তা করে।

    আপেলে কোরেসেটিন থাকায় এটি প্রোস্টেট, কোলন এবং ফুসফুসের ক্যানসারসহ বিভিন্ন ধরনের ক্যানসার হওয়ার ঝুঁকি হ্রাস করতে পরিচিত। সন্ধ্যায় প্রতিদিন এক কাপ হিসাবে এটি ক্যানসার প্রতিরোধে ব্যবহৃত আপেল চা খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

    হাড়কে মজবুত করে। ভিটামিন সি, সোডিয়াম, পটাসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়ামের মতো খনিজ রয়েছে। আপেল চা শক্তিশালী পেশী এবং হাড় সরবরাহ করে। এটি বার্ধক্যজনিত কারণে অস্টিওপরোসিসের ঝুঁকি হ্রাস করে। বাতজনিত জন্য এটি ভাল।

    গবেষণায় দেখা গেছে, পলিফেনল এবং ক্যাটচিনগুলো চর্বি পোড়াতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে। সুতরাং, তারা ওজন হ্রাস ঘটায়। সর্বাধিক উপকারের জন্য, আপনি গ্রিন টিয়ের সাথে এক কাপ আপেল চা মিশিয়ে নিতে পারেন। এটিতে ক্যালোরি কম থাকে এবং এতে মূল্যবান ভিটামিন এবং খনিজ থাকে। চলুন এবার দেখে নিন কীভাবে আপেল চা বানাবেন।

    আপেল চা বানানোর পদ্ধতি : সাধারণত শীতের অঞ্চলে এই চায়ের ব্যবহার বেশি। এই চা বানাতে লাগবে, একটা গোটা আপেল, তিনকাপ পানি,এক টেবিল চামচ লেবুর রস, দুটো টি ব্যাগার পরিমাণ মতো দারুচিনি গুঁড়া।

    পাত্রে পানি নিয়ে তার মধ্যে ওই লেবুর রস ঢেলে পানি গরম করে নিতে হবে। পানি ফুটতে থাকলে এর মধ্যে টি ব্যাগগুলো ডুবিয়ে দিতে হবে। হালকা আঁচে চা ফুটতে থাকলে সেই সময়েই আপেল টা টুকরো করে নিতে হবে। আপেলের টুকরোগুলো ওই চায়ের পাত্রে ফেলে দিতে হবে। পাঁচ মিনিট ফোটানোর পর দারুচিনি গুঁড়া ঢেলে নামিয়ে নিন। পরিমাণ মতো চিনি দিয়ে পরিবেশন করুন।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    ভিপি নুরের বিলাসী জীবন!

    ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯

    আর্কাইভ

    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
  • ফেসবুকে আমরা

  • You cannot copy content of this page