• শিরোনাম

    দীপাবলিতে অসংখ্য প্রদীপে আলোকিত হলো বরিশালের মহাশ্মশান

    মানচিত্র ডেস্ক | ২৬ অক্টোবর ২০১৯ | ২:১৬ অপরাহ্ণ

    দীপাবলিতে অসংখ্য প্রদীপে আলোকিত হলো বরিশালের মহাশ্মশান

    ছবি-সংগৃহীত

    হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা রোববার ব্যাপক আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালন করবে কালিপূজা। এই পূজার আগের দিন অর্থাৎ শনিবার ছিল শ্মশান দীপাবলি। সন্ধ্যায় ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করে শুরু হয় দীপাবলির আনুষ্ঠানিকতা। দক্ষিণ এশিয়ায় সবচেয়ে বড় শ্মশান দীপাবলি অনুষ্ঠিত হয় বরিশালের মহাশ্মশানে।

    গত ২০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে এই শ্মশানে পালিত হয়ে আসছে শ্মশান দীপাবলি। এরই ধারাবাহিকতায় এবারও অসংখ্য প্রদীপের আলোয় আলোকিত হয় মহাশ্মশান। বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করে কয়েক হাজার মানুষের আগমন ঘটে শ্মশানটিতে।   শুভভূত চতুর্র্দশীর পূর্ণ তিথিতে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা এ দীপাবলি উৎসবের আয়োজন করে আসছেন।

    গোধূলি বেলায় হাজার হাজার নরনারী শ্মশানে স্বজনদের সমাধিতে প্রদীপ জ্বেলে তাদের আত্মার শান্তি কামনা করেন। পরে হারিয়ে যাওয়া প্রিয়জনের প্রিয় খাবারগুলো সাজিয়ে দেওয়া হয় সমাধির পাদদেশে। সবকিছু করা হয় পূর্ণ তিথি থাকা অবস্থায়। মধ্যরাত পর্যন্ত আলোকিত থাকে সমাধি মন্দিরগুলো।

    পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত থেকে মায়ের আত্মার শান্তি কামনায় প্রদীপ জ্বালিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য এসেছেন মানিক ঘোষ। তিনি জানান, গত বছর আসতে পারেননি। এ বছর তিনি তার পরিবারসহ এসেছেন বাবা-মায়ের সমাধিতে প্রদীপ জে¦লে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে।

    ২০০৫ সালে ঝালকাঠীতে জেএমবির বোমা হামলায় নিহত বিচারক জগন্নাথ পাঁড়ের সমাধি মন্দিরে দেখা গেছে তার স্ত্রী পল্লবী পাঁড়ে ও একমাত্র ছেলে শ্রেষ্ঠ পাঁড়েকে। শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য এ রকম হাজার হাজার স্বজন উপস্থিত হন বরিশাল মহাশ্মশানে। স্বজন ছাড়াও দর্শনার্থী হিসেবে ভিড় জমায় মুসলিম ধর্মসহ অন্যান্য ধর্মের মানুষ। স্বজনহারা সমাধিগুলোও দীপাবলির আলোকে আলোকিত হয়ে ওঠে।

    বরিশাল মহাশ্মশান রক্ষা কমিটির সভাপতি মানিক মুখার্জি বলেন, ‘শ্মশান দীপাবলিকে সামনে রেখে সব ব্যবস্থা করা হয়েছে। কিন্তু গত দুদিনের বৃষ্টির কারণে একটু সমস্যা হয়েছে। তবে তাতে উৎসবে কোনো সমস্যা হয়নি। স্বজন এবং দর্শনার্থীদের ভিড় কমেনি। যাদের স্বজন নেই এমন প্রায় এক হাজার সমাধি কর্তৃপক্ষের উদ্যোগে আলোকিত করা হয়েছে।’

    এই শ্মশানের অধিকাংশ পুরনো সমাধি ধ্বংস হয়ে গেছে। এখনো পুরনো যে সমাধিগুলো রয়েছে, তার মধ্যে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের নেত্রী মনোরমা মাসি, শিক্ষাবিদ কালিচন্দ্র ঘোষের সমাধি অন্যতম।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    পৃথিবীর যে দেশে কোন সাপ নেই?

    ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

    আর্কাইভ

    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে আমরা