• শিরোনাম

    জার্মানিতে ফের চালু হয়েছে বঙ্গবন্ধু ফেলোশিপ

    মানচিত্র ডেস্ক | ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২:৩৬ অপরাহ্ণ

    জার্মানিতে ফের চালু হয়েছে বঙ্গবন্ধু ফেলোশিপ

    ছবি-সংগৃহীত

    জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে জার্মানির হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রফেসরিয়াল ফেলোশিপ’ শীর্ষক বাংলাদেশ চেয়ার ফের চালু হয়েছে। জার্মানিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ইমতিয়াজ আহমেদ বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে এবং হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেক্টর প্রফেসর ড. এইস সি বের্নহার্ড এইটেল ১১ ডিসেম্বর এ বিষয়ে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেন।

    ড. বের্নহার্ড এইটেল বলেন, শিক্ষার্থীদের জ্ঞান বিকাশে বঙ্গবন্ধু ফেলোশিপ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। ‘এ সমঝোতা স্বাক্ষরের উদ্দেশ্য হলো শিক্ষার্থীদের ও সমাজের উন্নয়নে ভূমিকা রাখা৷ বঙ্গবন্ধু ফেলোশিপ হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জ্ঞান অন্বেষনে সহায়তা করার মধ্য দিয়ে বৈশ্বিক জ্ঞান উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে৷’

    সমঝোতা স্মারকের মধ্য দিয়ে ১৭ বছর বন্ধ থাকার পর আবারো চালু হলো বঙ্গবন্ধু ফেলোশিপ৷ ১৯৯৯ সালে বাংলাদেশের রাজনীতি, অর্থনীতি, শিল্প, সাহিত্যসহ নানা বিষয়ে গবেষণা, বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে বাংলাদেশ বিষয়ে পড়তে আসা ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে বাংলাদেশের ইতিহাস, রাজনীতি, অর্থনীতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে জ্ঞান ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে হাইডেলবার্গ বিশ্বিদ্যালয়ের দক্ষিণ এশিয়া ইনস্টিটিউটে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রফেসরিয়াল ফেলোশিপ’৷

    তবে চালু হওয়ার দুবছরের পর বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারের আমলে বন্ধ হয়ে যায় এ চেয়ার৷ নতুন এ সমঝোতার আওতায় হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের দক্ষিণ এশিয়া ইন্সটিটিউটে প্রতি বছর একজন শিক্ষক ছয়মাসের জন্য যোগদান করবেন৷ বাংলাদেশের রাজনৈতিক, অর্থনীতি, সংস্কৃতি ইত্যাদি বিষয়ে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পাঠদান করবেন৷

    কর্তৃপক্ষ বলছে, প্রতিবছর এপ্রিলে শুরু হওয়া সামার সেমিস্টারে প্রস্তাবিত এ শিক্ষক যোগদান করবেন৷ শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া ও নিয়োগকৃত শিক্ষকের আবাসিক সুবিধাদি বিষয়ে দুপক্ষের মধ্যে আলোচনা চলছ বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ৷ দক্ষিণ এশিয়া ইন্সটিটিউটের শিক্ষক, মডার্ন ইন্ডোলজি বিভাগের প্রধান প্রফেসর ড. হান্স হার্ডার বলেন, ‘আমরা আনন্দিত যে বাংলাদেশ সরকার আমাদের এটি দিয়েছে৷ আশা করি আগামী বছর থেকে আমরা এর পুরো সুবিধা পাব৷’

    তিনি বলেন, আমরা আগামী বছর থেকে বাংলাদেশ থেকে একজন গবেষককে ছয় মাসের জন্য আনবো৷ ‘দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলো নিয়ে আমরা কাজ করি৷ বাংলাদেশ নিয়ে ইতিমধ্যে কিছু কাজ হয়েছে তবে আরো অনেক কাজ করা প্রয়োজন৷ ফেলোশিপের এ সুবিথার মধ্য দিয়ে সে কাজটি এগিয়ে নেওয়া যাবে৷’

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    ভিপি নুরের বিলাসী জীবন!

    ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯

    আর্কাইভ

    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আমরা