আজ বৃহস্পতিবার | ১৬ আগস্ট২০১৮ | ১ ভাদ্র১৪২৫
মেনু

এশিয়া কাপের ফাইনালে বাংলাদেশের মেয়েরা

মানচিত্র ক্রীড়া ডেস্ক | ০৯ জুন ২০১৮ | ১২:৫২ অপরাহ্ণ

ফাইল ছবি

প্রথমবারের মতো এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল। আজ শনিবার কুয়ালালামপুরে স্বাগতিক মালয়েশিয়ার বিরুদ্ধে ৭০ রানের বিশাল ব্যবধানে জিতেছে সালমা-রুমানারা। এর আগে টসে জিতে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশের অধিনায়ক সালমা খাতুন। ২০ ওভারে মাত্র ৪ উইকেট হারিয়ে মালয়েশিয়াকে ১৩১ রানের লক্ষ্য দেয় বাংলাদেশ। জবাবে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৬০ রানেই গুটিয়ে যায় স্বাগতিকরা। ফলে ৭০ রানের বড় জয় নিয়ে ফাইনালে পৌঁছে যায় নারী টাইগাররা।

আগামী ১০ জুন ফাইনালে ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশের মেয়েরা। এর আগে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানকে ৭ উইকেটে হারিয়ে ফাইনালে পৌঁছায় ভারত। চলতি বছল এই টুর্ণামেন্টে জয়ের মুখ না দেখতে পারা এমনকি কোন ম্যাচে ৫০ পার হতে না পারা মালয়েশিয়ার আজও শুরুটা ভালো হয়নি। দলীয় মাত্র ৭ রানেই ওপেনার ক্রিস্টিনা বারেতকে বোল্ড করে ফেরান জাহানারা, তিনি করেছিলেন মাত্র ২ রান। দলের স্কোরে আর ১০ রান যোগ করতেই ১১ রানে থাকা আরেক ওপেনার ইউসরিনা ইয়াকুপ ফেরেন রান আউট হয়ে।

মাস এলিসা কিছুটা রানের চাকা সচল রাখলেও, ১৪ রানে রুমানা আহমেদের বলে এলবির ফাঁদে পড়ে বিদায় হন। একদিকে আসা-যাওয়ার মিছিল চলতে থাকলেও অন্যপ্রান্ত আগলে রাখেন উইনিফ্রেড ডুরাইসিংঘাম। তবে দীর্ঘক্ষন চেষ্টা করেও মাত্র ১৭ রান তুলতেই রুমানার বলে জাহানারার হাতে ক্যাচ হয়ে ফেরেন।

এরপর অবশ্য আর কেউই দাঁড়াতে পারেননি। বাংলাদেশের হয়ে দুর্দান্ত বোলিং করে ৩ উইকেট তুলে নেন রুমানা। এছাড়া জাহানারা, সালমা, কুবরা ও নাহিদা একটি করে উইকেট নেন।

তার আগে নিজেদের ইনিংসে বাংলাদেশের ২ ওপেনার শামীমা সুলতানা ও আয়েশা রহমান ৫৯ রানের জুটি গড়ে ভালো শুরু এনে দিলেও ১০ম ওভারের শেষ বলে ব্যক্তিগত ৩১ রানে ফিরে যান ডানহাতি আয়েশা। ১৬তম ওভারের তৃতীয় বলে ৭ রান করা ফারজানা হক ও একই ওভারে শেষ বলে ৪৩ রানে আউট হয়ে ফেরেন শামীমা।

শেষ দিকে সানজিদা ইসলাম ও ফাহিমা খাতুন দায়িত্বশীল ব্যাটিং করেন, তারা তুলেন ১৫ ও ২৬ রান। মাত্র ১২ বলে ২৬ রানের অপরাজিত ঝড়ো ইনিংস খেলেন ফাহিমা। ২৫ বছর বয়সী এই অলরাউন্ডারের সঙ্গে এক বলে ২ রান নিয়ে অপরাজিত ছিলেন জাহানারা আলম। স্বাগতিক বোলারদের হয়ে দুটি উইকেট তুলে নেন উইনি ফ্রেড দুরাইসিংহাম। শাশা আজমিন নেন একটি উইকেট।

Comments

comments

x