আজ সোমবার | ২১ মে২০১৮ | ৭ জ্যৈষ্ঠ১৪২৫
মেনু

অনন্য রেকর্ড গড়লেন রজার ফেদেরার

মানচিত্র ক্রীড়া ডেস্ক | ২৮ জানু ২০১৮ | ২:৫১ অপরাহ্ণ

ছবি- সংগৃহীত

নিজেকে ছাড়িয়ে গেলেন আবারো। ২০তম গ্র্যান্ড স্ল্যাম জিতে অনন্য রেকর্ড গড়লেন টেনিসের বরপুত্র রজার ফেদেরার।

ফাইনালে মারিন সিলিচকে হারিয়ে আসরে রেকর্ড ৬ষ্ঠ ও টানা দ্বিতীয় অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জিতলেন রজার ফেদেরার।

এতে স্পর্শ করলেন রয় এমারসন ও নোভাক জোকোভিচের রেকর্ডকে। আর সর্বোচ্চ গ্র্যান্ডস্ল্যাম জয়ের রেকর্ডকে অমরত্বের জায়গায় নিয়ে গেলেন সুইস তারকা।

১৭ নম্বর গ্র্যান্ড স্লামটা জিতেছেন ২০১২ সালে। এরপর ‘১৮’ নম্বর লুকোচুরি খেলছে ফেদেরারের সঙ্গে। গেল বছর এই অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ফাইনালেই ধরা দিয়েছে অধরা ১৮ নাম্বার গ্র্যান্ড স্লামটা।

তার পর বছরের শেষটায় নিজেকে ছাড়িয়ে ১৯ নম্বর উইম্বলডনের মালিক হয়েছেন। ফুরিয়ে যাননি এখনো। ৩৬ বছর বয়সে আরও একবার দেখালেন বুড়ো হাড়ের ভেল্কি। তাতে শুধু রড লেভার অ্যারেনা নয় মন্ত্রমুগ্ধ পুরো বিশ্ব।

গেল উইম্বলডনে ফেদেরারের কাছে শিরোপা খোয়ানোর শোধটা নেবেন ভেবেছিলেণ সিলিচ। কিন্তু শুরু থেকেই তাকে চোখে আঙ্গুল দিয়ে নিজের সঙ্গে পার্থক্য বোঝাতে থাকলেন ফেড এক্সপ্রেস। প্রথম সেটের প্রথম চার গেমেই দারুণ সব সার্ভ।

৫ নাম্বারটায় এসে ঘুরে দাড়ানোর চেষ্টায় সফল সিলিচ। পরের গেম হারলেও ছ’নাম্বারটায় আবারো ক্রোয়েশিয়ান তারকার ইউটার্ন। কাজ হয়নি। ২৪ মিনিটের লড়াই শেষে প্রথম সেটে ৬-২ এর হার।

মেলবোর্ন পার্কে থেকে থেকেই হুঙ্কার ছেড়েছেন সিলিচ। ২য় সেট দুলছিল পেন্ডুলামের মতো। কখনো সিলিচ কখনো ফেড। এমনি এগুয় টাইব্রেকার। সেখানে বাজিমাত ওয়ার্ল্ড নাম্বার সিক্সের। ৭-৬ এ সেট জিতে ক্যারিয়ারের ২য় গ্র্যান্ড স্লাম জয়ের স্বপ্নে বিভোর সিলিচ।

ক্রোয়েশিয়ান টেনিস প্রেমিদের উল্লাসে ভাটা পরে ৩য় সেটে। আবারো স্বরুপে ফেদেরার। প্রতিরোধের চেষ্টায় ব্যর্থ সিলিচ। ৬-৩ এর জয় টেনিস গ্রেটের।

পরেরটায় আবারো ক্যামব্যাক সিলিচের। ৩-৬ সেট জিতে জমিয়ে দিলেন ম্যাচ। কিন্তু এত সহজে যে ছাড় দেবেন না ফেড এক্সপ্রেস। মহাকাব্যিক লড়াইয়ের শেষটায় নিজেকে ছাড়িয়ে যাবার দারুণ প্রয়াস। ৬-১ জিতে নেন শেষ সেট।

শিরোপা নির্ধারণী পঞ্চম সেটে দাপুটে নৈপুণ্যের পর একেবারে নির্বাক ফেদেরার। তিনি জিতলেন। ছাড়িয়েও যে গেলেন নিজেকেই। তাই গ্রেটের আনন্দ আর আনন্দ অশ্রুর মিশেলেই বিশ্ব বলছে সর্বকালের সেরা টেনিস যোদ্ধাতো ফেদেরারই।

Comments

comments

x