আজ সোমবার | ২০ নভেম্বর২০১৭ | ৬ অগ্রহায়ণ১৪২৪
মেনু

বাইকে চড়ে বিশ্ব ভ্রমণে ইরানি কন্যা!

মানচিত্র ডেস্ক | ২৭ অক্টো ২০১৭ | ২:০৮ অপরাহ্ণ

িইরানী কন্যা ছবি- সংগৃহীত

ডা. মারাল ইয়াজারলুকে চেনেন? ভারতের পুনের বাসিন্দা ইরানি এই মেয়ের কান্ডকারখানা আপনাকে চমকে দেবে। মাত্র ১৮ মাসে ১ লাখ কিলোমিটার বাইক চালানোর মিশনে নেমেছেন ইয়াজারলু। বিশ্বের সাতটি মহাদেশের ৪৫টি দেশে বাইক নিয়ে সফর করছেন তিনি। গত মার্চ মাসে সফর শুরু করেছেন ৩৫ বছরের ইয়াজারলু। বর্তমানে রয়েছেন পেরুতে।

জন্মগতভাবে ইরানের বাসিন্দা মারাল ইয়াজারলু ১৫ বছর আগে ভারতে চলে আসেন। ইরানে নারীদের বাইক চালানো নিষিদ্ধ। তাই ভারতে আসার আগে বাইকের বিষয়ে প্রায় কিছুই জানতেন না তিনি। ভারতে এসে ধীরে ধীরে মোটরবাইক রাইডিং-এর নেশায় বুঁদ হয়ে যান তিনি। ৮০০ সিসি বিএমডাব্লু জিএস নিয়ে দুনিয়া ভ্রমণে বেরিয়েছেন ইয়াজারলু। সঙ্গে রয়েছেন ফটোগ্রাফার ও ড কুমেন্টারি ছবি নির্মাতা পঙ্কজ ত্রিবেদী।

নারীদের সম্পর্কে বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্যের পুরুষতান্ত্রিক সমাজের যে বিধিনিষেধ রয়েছে তা ভাঙতেই তার এই বাইক-সফর বলে জানিয়েছেন ইয়াজারলু। তার এই মিশনের নাম ‘রাইড টু বি ওয়ান’। ইতোমধ্যেই মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া পার করে সফরের প্রথম ভাগ পেরিয়ে এসেছেন তিনি। দ্বিতীয় ভাগে রয়েছে কানাডা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং মেক্সিকো। তৃতীয় ভাগে রয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা, সুদান, ইজিপ্ট এবং চতুর্থ ও চূড়ান্ত ভাগে গ্রিস, তুরস্ক, চীন সফর করে ভারতে ফেরত আসবেন তারা। সঙ্গে কোনও ব্যাকআপ ভেহিকেল বা সাপোর্ট টিম রাখেননি ইয়াজারলু ও পঙ্কজ।

প্রতিটা দিনের জন্য তারা নতুন করে তৈরি হচ্ছেন। চূড়ান্ত প্রতিকূল আবহাওয়ার মধ্যেও বাইক সফর বন্ধ রাখেননি ইয়াজারলু। যাবেন এমনকি অ্যান্টার্কটিকাতেও। ইরানেও যাওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে তার। জানালেন, ‘আমার জন্মভূমিতে মেয়েরা বাইক চালাতে পারে না। আমি সেখানে গিয়ে নেতাদের অনুরোধ জানাব যাতে এই ফতোয়া তারা তুলে নেন। মেয়েদের বাইক চালানো ইসলামবিরোধী নয়, এটাই তাদের বোঝানোর চেষ্টা করব।

‘শিক্ষাগত দিক দিয়ে ইয়াজারলু একজন এমবিএ। মার্কেটিং-এ পিএইচডি করেছেন তিনি। পঞ্চশীল রিয়েলিটির রিটেইল ও মার্কেটিং বিভাগের তিনি প্রধান। পাশাপাশি গধ/ণধ নামে একটি নিজস্ব ফ্যাশন ব্র্যান্ডও চালু করেছেন ইয়াজারলু। বিভিন্ন দেশ ঘুরে এই সফরে ফ্যাব্রিককে আরও ভালো করে বোঝার চেষ্টা করছেন তিনি।

Comments

comments

x