আজ সোমবার | ২০ নভেম্বর২০১৭ | ৬ অগ্রহায়ণ১৪২৪
মেনু

রেজোয়ানের পরিবারের সহায়তায় ৪০ হাজার ডলার সংগ্রহ

এ এইচ রাসেল | ২৫ সেপ্টে ২০১৭ | ৪:০১ অপরাহ্ণ

রেজোয়ানে ফাইল ছবি-রেজোয়ান

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় বোঝা হলো- ‘পিতার কাধে সন্তানের লাশ’। এর চাইতে পৃথিবীতে কষ্টের আর কিছু নেই! যেমনটা সম্প্রতি ঘটেছে হতভাগ্য রেজোয়ানের পিতার ভাগ্যে। কোন দিন তিনি কল্পনাও করতে পারেননি তার ভাগ্যে এমন নির্মম একটা ঘটনা ঘটবে। জীবনের শুরুতেই নানা কাঠ খড় পেরিয়ে স্থলপথে সাত সমুদ্র তের নদী পার হয়ে আমেরিকা জয় করেছিল রেজোয়ান। তবে অকাল মৃত্যুর কাছে হেরে গেছে রেজোয়ান। যে ছেলেটা নানা ঝক্কি ঝামেলা পার হয়ে আমেরিকায় এসে স্বপ্ন বুনছিলো, মা-বাবার মুখে হাসি ফোটাবে, কিন্তু একটি বুলেট পুরো পরিবারের স্বপ্ন ভেঙ্গে দিল পরিবারটির।

 অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন, স্বদেশ ছেড়ে ভাগ্যেন্নয়নের জন্য আসাটা কি রেজোয়ানের জন্য কি অপরাধ? আমেরিকায় অহরহ রেজোয়ানের মতো যুবকরা প্রাণ হারাচ্ছেন দুর্বৃত্তদের হাতে। কিন্তু এমন রেজোয়ানদের জন্যই আমেরিকার মতো রাষ্ট্রে শ্রম বাজার টিকে আছে। শুধু তাই নয় এমন উন্নত একটি রাষ্ট্রে রেজোয়ানরা অকালে প্রাণ হারাবেন; প্রবাসে বসবাসরত বাংলাদেশি তথা বাঙালী সমাজ মেনে নিতে পারছেন না। যে শুনেছে সেই আফসোস করেছে, হতবাক হয়েছে ২০ বছর বয়সী তরুনের মার্কিন সাম্রাজ্যে কৃঘ্ণাঙ্গদের গুলিতে বিনা দোষে না ফেরার দেশে চলে যাওয়ায়।

তবে রেজোয়ানের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছে প্রবাসী বাংলাদেশিরা। তার রেখে যাওয়া ধার-দেনা শোধ করতে সকলে সম্মিলিত ভাবে ৪০ হাজার ডলার সংগ্রহ করেছেন। যা একটি বিরল ঘটনাও বটে। শুধু আবেগ-অনুভূতি আর ভালোবাসায় যা একমাত্র বাঙালীরাই পারে।

রেজোয়ানের পরিবারের প্রতি সমবেধনা জানিয়ে যে সকল প্রবাসীরা সহায়তার হাত বাড়িয়েছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেছেন রেজোয়ানের আটলান্টার অভিবাবক সমতুল্য সাদমান সুমন ও তার পরিবার।

Comments

comments

এই বিভাগের আরও খবর
x