আজ মঙ্গলবার | ২৬ সেপ্টেম্বর২০১৭ | ১১ আশ্বিন১৪২৪
মেনু

মামলাকারী সেই আওয়ামী লীগ নেতাকে বহিষ্কার

মানচিত্র ডেস্ক | ২১ জুলা ২০১৭ | ৩:১৪ অপরাহ্ণ

সেই আওয়ামী লীগ নেতাকে বহিষ্কার

বঙ্গবন্ধুর ছবি কার্ডে ছাপানো নিয়ে অতিউৎসাহী হয়ে ইউএনওর বিরুদ্ধে মামলা করা বরিশালের সেই আওয়ামী লীগ নেতাকে দল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। গতকাল সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন গণভবনে দলের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। সভা শেষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ইউএনওর বিরুদ্ধে অতি উৎসাহী হয়ে মামলা করেছেন বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক ওবায়েদ উল্লাহ সাজু। তিনি অহেতুক মামলা করায় আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রের ৪৭ (ক) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী তাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। একই সঙ্গে তাকে কেন স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হবে না, তা জানতে চেয়ে নোটিশ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ।

শুক্রবার সন্ধ্যায় হানিফ বলেন, অতি উৎসাহী হয়ে ইউএনওর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন আওয়ামী লীগ নেতা সাজু। এ কারণে তাকে সাময়িক বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত হয়েছে। সাজুর করা মামলায় বরিশালের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তারিক সালমানের কয়েক ঘণ্টা হাজতবাস ও হেনস্তা নিয়ে সারা দেশে সমালোচনার মধ্যে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ এই সিদ্ধান্ত নেয়।

আওয়ামী লীগের উপদপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া জানান, বিকালে গণভবনে দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভা হয়। সভার পর সাজুর বিষয়ে দলের সিদ্ধান্ত গণমাধ্যমকে জানান দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

বিপ্লব বলেন, আজকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সাময়িক বহিষ্কারাদেশ ও কারণ দর্শাও নোটিশ শিগগিরই বরিশালে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। সন্তোষজনক জবাব না পেলে তাকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হবে।

তারিক সালমান বরিশালের আগৈলঝাড়ার ইউএনও থাকাকালে স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্রে বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃত করে ছাপিয়েছিলেন অভিযোগ করে গত ৭ জুন মামলা করেন জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ওবায়েদ উল্লাহ সাজু। ওই মামলায় সমন জারির প্রেক্ষাপটে নির্ধারিত দিন গত বুধবার আদালতে হাজির হন তারিক সালমান। এর পর তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন বরিশাল মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের বিচারক মো. আলী হোসাইন। আবার একই বিচারক দুই ঘণ্টা পর ইউএনওর জামিন মঞ্জুর করেন।

মনোনয়ন বোর্ডের বৈঠক সূত্রে জানা যায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, কিছু লোক আওয়ামী লীগ হয়ে আমাদের দলে ঢুকে এ ধরনের অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা ঘটিয়ে দল ও সরকারকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলে। তাই সবাইকে সাবধান হতে হবে। কাউকে দলে নেওয়ার আগে তার সম্পর্কে বিস্তারিত জানা উচিত। তার উদ্দেশ্য কী, সেটাও ভালো করে জানা উচিত। কারো বিষয়ে বিস্তারিত না জেনেও তাকে দলে নিয়ে পদ-পদবি পর্যন্ত দিয়ে দেওয়ার মতো ঘটনা ঘটছে। এগুলো যারা করছেন, তারা অমার্জনীয় অপরাধ করছেন। মনে রাখতে হবে, তারা আসেন পদ নিতে, পদ নিয়ে দলের ও সরকারের ক্ষতিই করবেন।

সূত্র-যুগান্তর

Comments

comments

x